অর্থনীতি

কৃষকের সক্ষমতা বাড়াতে দেড় শ কোটি টাকার প্রকল্প

কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও কৃষকদের আর্থিক সক্ষমতা বাড়াতে নতুন করে দেশের এক লাখ ১৮ হাজার ক্ষুদ্র কৃষককে ঋণ দেবে সরকার। এ ঋণের সুদহার হবে ১১ শতাংশ। তবে সুফলভোগীদের তহবিলে ১ শতাংশ যুক্ত হবে। ‘রূপকল্প ২০৪১ : দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র সঞ্চয় যোজন’ প্রকল্পের আওতায় কিছু বৃহৎ ঋণও দেওয়া হবে।

ফলে প্রকল্প অনুমোদনের পর ঋণের আওতায় আসবে মোট এক লাখ ৩৬ হাজার কৃষক। প্রথম ধাপে ক্ষুদ্রঋণের ভলিউম হবে ৩০ থেকে ৭০ হাজার টাকা। প্রকল্পের আওতায় ঋণ ভলিউম দেড় লাখ থেকে চার লাখ টাকা পর্যন্ত হবে।

‘রূপকল্প ২০৪১ : দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র সঞ্চয় যোজন’ প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ নিয়েছে ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশন (এসএফডিএফ)। প্রকল্পের মোট প্রস্তাবিত ব্যয় ১৫০ কোটি টাকা। আজ বুধবার পরিকল্পনা কমিশনের একনেক সভায় প্রকল্পটি উপস্থাপন করা হবে।

এ বিষয়ে বাস্তবায়নকারী সংস্থা ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের উপমহাব্যবস্থাপক (আইসিটি, পরিকল্পনা ও ডকুমেন্ট) মো. আবুল কালাম আজাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রকল্পটি বুধবার একনেক সভায় উপস্থাপন করা হবে। প্রকল্প অনুমোদনের পর এ ঋণের আওতায় আসবে মোট এক লাখ ৩৬ হাজার ক্ষুদ্র কৃষক। ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশন অলাভজনক সংস্থা। আমরা ১১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ নিই। এটা সুদ নয়, সার্ভিস চার্জ। ব্যাংকঋণের সঙ্গে এর তুলনা করলে হবে না। আমরা কৃষকের ঘরে ঘরে গিয়ে ঋণ দিয়ে আসি। এ কাজে এনজিওগুলো ২৮ থেকে ৩০ শতাংশ সুদ নেয়। আমরা নিচ্ছি ১১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ। ১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ আবার কৃষকদের ফেরত দেওয়া হবে। আমরা প্রফিট করি না, আয় থেকে ব্যয় হবে। ’

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেকে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ এক একনেকে অনুমোদনের জন্য উঠছে আট প্রকল্প। প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো রূপকল্প ২০৪১ : দারিদ্র্য বিমোচনে ক্ষুদ্র সঞ্চয় যোজন প্রকল্প, দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদরাসা স্থাপন ও পরিচালনা প্রকল্প, বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের জন্য ৫০ টিবিজি এবং ৫০টি এমজি যাত্রীবাহী ক্যারেজ পুনর্বাসন প্রকল্প।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button