সাধারণ

সরকার বিরোধী চক্রের অর্থায়নে বই লিখেছেন এস কে সিনহা !

 

নিউজ ডেস্ক: জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা (এস কে সিনহা)-কে ট্রাম্প কার্ড হিসেবে ব্যবহার করার নীল নকশা প্রণয়ন করেছে সরকার বিরোধী একটি চক্র। বিদেশের মাটিতে অবস্থাান করে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে নানা ধরণের অপতৎপরতা চালাচ্ছে সাবেক ওই প্রধান বিচারপতি। তাকে দিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বই লেখাচ্ছেন ওই সরকারবিরোধী চক্রটি। এই অপশক্তি দেশে জঙ্গি সৃষ্টির জন্য বিপুল অর্থ ব্যয় করছে বলেও জানা গেছে। সব জেনে বুঝেও সরকারের বিরুদ্ধে বই লিখেছেন এস কে সিনহা। সাবেক প্রধান বিচারপতির লেখা বইটি আগামী নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে বাজারে ছাড়া হবে। আওয়ামী লীগ যাতে নির্বাচনে বিজয়ী হতে না পারে সেজন্যই জনপ্রিয়তায় ধস নামানোর নীল নকশার অংশ হিসাবে সরকার বিরোধী চক্র এসকে সিনহাকে ট্রাম্প কার্ড মনে করে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় চলতি মাসে তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার বিষয়ে যে বক্তব্য তুলে ধরেছেন তা শতভাগ সত্য । সিনহার সরকার বিরোধী এই অবস্থাান খুব ভয়াবহ ও উদ্বেগজনক। সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাকে গোপনে যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেমের ভাই জঙ্গি নেতা মামুন টাকা দিয়েছে।

গোয়েন্দা সংস্থাা সূত্র বলছে, সাবেক প্রধান বিচারপতি বিদেশে অবস্থাান করলেও দেশের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। এক সঙ্গে বিচার বিভাগে কাজ করেছেন এমন ঘনিষ্ঠ বিচারপতি ও আইনজীবীদের সঙ্গে যোগাযোগ আছে তার। প্রধান বিচারপতির পদ থেকে পদত্যাগ করে বিদেশে চলে যাওয়ার পর দেশের সরকার বিরোধী রাজনীতিক, বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সরকার ও রাজনীতি সম্পর্কে খোঁজ খবর নিচ্ছেন তিনি। সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ পরায়ণ হয়ে সিনহা দেশে কার সঙ্গে কিভাবে যোগাযোগ করছেন এবং বিদেশে সরকারের বিরুদ্ধে কী ধরনের তৎপরতা চালাচ্ছেন তা খতিয়ে দেখছে গোয়েন্দা সংস্থাা।
সিনহার দেশে ফেরার ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। তবে দুর্নীতি দমন কমিশনে সাবেক প্রধান বিচারপতি সিনহার বিরুদ্ধে আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিহীন অর্থসহ ১১টি অভিযোগ রয়েছে তা ইতোমধ্যেই তদন্ত শুরু হয়েছে বলেও জানা গেছে। হাইকোর্টের সোনালী ব্যাংক শাখায় সিনহার নামে জমা হওয়া ৪ কোটি টাকার বিষয়টি তদন্তের জন্য মাঠে নামে তদন্ত সংস্থাা দুদক।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button