অপরাধ অনুসন্ধানখাগড়াছড়িপার্বত্য অঞ্চলসারাদেশ

ফটিকছড়িতে গরু চুরির দায়ে ফেঁসে গেলেন নিরপরাধ যুবক সুজন

ফটিকছড়িতে গরু চুরির দায়ে ফেঁসে গেলেন নিরপরাধ যুবক সুজন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ফটিকছড়ি পৌরসভার দক্ষিণ রাঙ্গামাটিয়া গ্রামের বাঘমারা নামক এলাকা থেকে শনিবার দিবাগত রাতে গরু চুরির দায়ে আটক হন সুজন বড়ুয়া।

অনুসন্ধানে জানা যায়, পুলিশের তাড়া খেয়ে নিজের কষ্টার্জিত টাকায় কেনা পিকআপকে মামলার হাত থেকে রক্ষা করতে বাঘমারা এলাকায় ঢুকে পড়ে। সেখানে জনৈক আবুল কাসেমের বাড়ীর সামনে গাড়ী রেখে নিজেকে আড়াল করতে গেলে স্থানীয় এক যুবক দেখে শোরগোল করলে এলাকাবাসী গরু চোর সন্দেহে তাকে আটক করে মারধর করে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাকে ও পিকআপ গাড়ীটি আটক দেখিয়ে নিয়ে যায়।
বাঘমারা থেকে কয়েকদিন আগে কয়েকটি গরু চুরি হওয়ায় এমনিতে এলাকার মানুষ গরু চুরিরোধে সজাগ ছিলো। তারপর গাড়ী ও গাড়ীর মধ্যে রশি দেখে মানুষের সন্দেহ হওয়ায় মূলত ফেঁসে গেলেন ফটিকছড়ির পাশ্ববর্তী উপজেলা রামগড়ের কর্মঠ, সৎ হিসেবে পরিচিত রুপন বড়ুয়ার ছেলে সুজন বড়ুয়া।

সুজন জানায়, ঐদিন সন্ধ্যায় রামগড় থেকে পিকআপযোগে ব্যবসায়ীদের গরু নিয়ে ফটিকছড়িতে নিয়ে যায়। গরুগুলি রেখে ফিরতি পথে পুলিশ তার গাড়ীটি থামতে সংকেত দেয়। সুজনের গাড়ীর কাগজপত্র আপডেট না থাকায় মামলার হাত থেকে রক্ষা পেতে গাড়ী না থামিয়ে বাঘমারা এলাকায় ঢুকে পড়ে।

স্থানীয় কয়েকজন এলাকাবাসী জানায়, একজন যুবকের শোরগোল শুনে তারা ঐস্থানে গিয়ে সুজনকে আটক করে। তবে তারা সুজনকে ঐ বাড়ীতে ঢুকতে অথবা গরু নিয়ে যেতে দেখেননি।

ফটিকছড়ি থানা সূত্রে জানা যায়, এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে সুজনকে আটক করা হয়েছে। অপরাধী নাকি নিরপরাধ সেটি তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে নিরপরাধ সুজন বড়ুয়াকে মারধর করে পুলিশে দেয়ার খবর মিডিয়ায় এলে তার পক্ষে শতশত পোস্ট সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। পোস্টকারীরা সুজন বড়ুয়াকে একজন পরিশ্রমি ছেলে এবং কিভাবে দিনরাত পরিশ্রম করে সৎ হিসেবে থাকা যায় তারই মডেল হিসেবে দেখিয়েছেন। তারা মনে করেন সুজন ঘটনার সাথে কোনভাবেই জড়িত নয়। সুষ্ঠু তদন্ত হলে সুজন এ ঘটনা থেকে অব্যাহতি পাবে বলেও তারা মনে করেন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button