আন্তর্জাতিকআলোচিত সংবাদখাগড়াছড়িখেলাধুলাজাতীয়পার্বত্য অঞ্চল

খাগড়াছড়ির নিজ বাড়িতে ফিরেছেন নারী ফুটবল দলের তিন খেলোয়াড়

মোঃ শরিফুল ইসলাম ভূঁইয়া আসাদ ঃ পাহাড়ী জেলা খাগড়াছড়ির নিজ বাড়িতে ফিরেছেন সাফ চ্যাম্পিয়নশীপে নেপালকে হারিয়ে জয় ছিনিয়ে আনা বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের তিন খেলোয়াড়। দীর্ঘ কয়েক কিলোমিটার পথ মোটর শোভাযাত্রার মাধ্যমে বিভিন্ন অলিগলি ফেরিয়ে জেলা স্টেডিয়ামে গিয়ে শেষ হয়। পরে জেলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। জেলাবাসীর এমন আন্তরিকতায় কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য ক্রীড়া উপযোগী সুযোগ সুবিধা তৈরীতে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ চান আনাই, আনুচিং ও মনিকারা। আগের অনেক বার বাড়ি ফিরেছেন আনাই, আনুচিং ও মনিকারা। তবে এবারের বাড়ির ফেরার অনুভূতি অন্যরকম।
গেল ১৯ সেপ্টেম্বর হিমালয়ের দেশ নেপালের মাটিতে স্বাগতিক দেশকে ৩-১ গোলে হারিয়ে সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। দেশে ফিরে আসার অধীর অপেক্ষায় ছিলেন জন্মভূমি পাহাড়ী জেলা খাগড়াছড়িতে। তবে জাতীয় ভাবে সংবর্ধনা সহ অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতায় বাড়ি ফিরতে অনেক বিলম্ভ হয়েছে ।
শুক্রবার সকাল ৯ টার কিছু পর খাগড়াছড়ি সদরের ঠাকুরছড়া এলাকায় পৌঁছেন আনাই, আনুচিং ও মনিকরা। ফুলেল শুভেচ্ছায় তাদের বরণ করে নেয়ার পর শুরু হয় মোটর শোভাযাত্রা। ছাদ খোলা চাঁদের গাড়িতে করে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা স্টেডিয়ামে তাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয় । জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠান রূপ নেয় গণসংবর্ধনায়।
তাৎক্ষণিক অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে জেলাবাসীর এমন আতিথিয়তায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন জাতীয় নারী দলের ফুটবলারা। নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যে বেড়ে উঠা মনিকা, আনাই ও আনুচিংরা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য খেলাধুলা উপযোগী মাঠ সহ পারিপাশ্বিক সুযোগ সুবিধা বাড়াতে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ চান।
খাগড়াছড়ির দুর্গম এলাকা থেকে উঠা আসে খেলোয়াড়রা জেলার সুনাম ছড়িয়েছেন দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বেও। তবে তাদের প্রতি জেলার উন্নয়ন সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি কেবলই উৎসব ও সংবর্ধনা কেন্দ্রিক সীমাবদ্ধ না রেখে তাদের জীবন মান উন্নয়নে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানান ক্রীড়া সংশ্লিষ্টরা। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ থেকে আনাই আনুচিং ও মনিকাদের বাড়ির পথে যাতায়াতের জন্য সেতু সহ সড়ক নির্মাণের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করা হয়। সাফ চ্যাম্পিয়নশীপ জয়ের পর খাগড়াছড়ির ৩ খেলোয়াড় ও জাতীয় দলের সহকারী কোচ তৃষ্ণা চাকমার জন্য জেলা প্রশাসনের ঘোষিত ৪ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button