পাকুয়াখালী দিবস উপলক্ষে লংগদুতে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্রপরিষদের শোকসভা এবং মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
ঐতিহাসিক পাকুয়াখালী দিবস উপলক্ষে লংগদুতে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্রপরিষদের শোকসভা এবং মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত। ৯ সেপ্টেম্বর ঐতিহাসিক পাকুয়াখালী দিবস উপলক্ষে লংগদুতে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্দ্যোগে এক বিশাল র্যালি, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্রপরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আসাদ উল্লাহ’র সঞ্চালনায় কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ইঞ্জিঃশাহাদাৎ ফরাজী সাকিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেব উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের
Open PhotoOpen Photo
চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ আলকাস আল মামুন ভূঁইয়া।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী সালমা আহমেদ মৌ।বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম লংগদু উপজেলা শাখার আহবায়ক ও সাবেক সফল চেয়ারম্যান জননেতা জনাব খলিলুর রহমান,নাগরিক পরিষদের রাঙামাটি জেলার যুগ্ম সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন,পিসিএনপি জেলা প্রচার সম্পাদক আলমগির হোসেন,পিসিসিপির কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম খলিল অপি,পিসিসিপি,র খাগড়াছড়ি জেলা শাখার আহব্বায়ক ছাত্রনেতা সুমন আহমেদ, পিসিসিপি খাগড়াছড়ি জেলা’র সদস্য সচিব মেহেদি হাসান,রাঙামাটি জেলা শাখার যুগ্ম আহব্বায়ক ছাত্রনেতা ফিরোজ আহমেদ,কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাসেল মাহমুদ,পিসিসিপির লংগদু উপজেলা কমিটির সদস্য সচিব মোঃ মনির হোসেন,লংগদু উপজেলা শাখার সিনিয়র যুগ্ম আহব্বায়ক সুমন তালুকদার,লংগদু উপজেলার আহব্বায়ক কমিটির সদস্য মোঃখালিদ রেজ,মোঃ নাসির হোসেন সহ স্থানীয় এবং কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। লংগদু উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে র্যালী শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ৩৫ কাঠুরিয়ার কবরস্থানে এসে মিলিত হয়ে শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে
Open Photo
মুনাজাত পরিচালনা করে লংগদু উপজেলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাইতুশ শরফ আদর্শ দাখিল মাদ্রাসার সুনামধণ্য সুপারিন্টেনডেন্ট হজরত মাওলানা মোঃ ফোরকান আহমেদ। উল্লেখ্য আধিপত্য বিস্তার এবং চাঁদা আদায় সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনার জন্য মাঝে-মধ্যে পাহাড়ে শান্তিবাহিনীর সঙ্গে কাঠুরিয়াদের বৈঠক হতো। এক পর্যায়ে ৯ সেপ্টেম্বর ১৯৯৬ উপজাতি জংগি সংগঠন শান্তিবাহিনী কর্তৃক একটি বৈঠক ডাকা হয়। এই বৈঠকে অংশগ্রহণের জন্য কাঠ ব্যবসায়ীদেরও নেয়ার জন্য শান্তিবাহিনীর পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হয়। শান্তিবাহিনীর কালেক্টর লংগদু থানার মাইনিমুখ বাজারে এসে ব্যবসায়ীদের চিঠির মাধ্যমে বৈঠকে অংশগ্রহণ করার আমন্ত্রণ জানায়। কিন্তু ইতিপূর্বে কোনো বৈঠকে ব্যবসায়ীদের এভাবে গুরুত্ব দিয়ে ডাকা হয়নি। ফলে ৯ সেপ্টেম্বরের বৈঠকে ব্যবসায়ীদের প্রতি অতিরিক্ত গুরুত্ব দেয়ায় ব্যবসায়ীরা বিষয়টি সন্দেহের চোখে দেখে এবং এড়িয়ে যায়। কিন্তু কাঠুরিয়ারা প্রতিদিনের মতো সেই দিন সকাল বেলা স্বাভাবিকভাবেই পাহাড়ে প্রবেশ করতে শুরু করে। তখন শান্তিবাহিনীর পক্ষ থেকে তাদেরকে জানানো হয়, বড়বাবু আজ সবার সঙ্গে মিটিং করবেন। তাই আগে মিটিং-এ যেতে হবে। এরপর যে যার কাজে যাবে। একথা বলেই এক সাথে চার-পাঁচজন বাঙালি কাঠুরিয়াকে কিছুদূর নিয়ে হাত-পা বেঁধে নির্মমভাবে হত্যা করে। সেদিনকার বাঁধা অবস্থা থেকে পালিয়ে আসা এক মাত্র ব্যক্তি মোহাম্মদ ইউনুছ মিয়া। এই ইউনুছ মিয়ার দেখানো পথ ধরেই ১১ সেপ্টম্বর খুঁজে বের করা হয় ২৮ জনের ক্ষত-বিক্ষত বিকৃত লাশ। কারো হাত নেই, কারো চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে, কারো কেটে নেয়া হয়েছে কান কিংবা পুরুষাঙ্গ। কাউকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে থেতলে দেয়া হয়েছে মাথা। আবার কাউকে জবাই করা হয়েছে অমানবিকভাবে। অপর ৭ হতভাগ্যেরতো লাশও খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমন নির্মম দৃশ্য দেখে সেদিন পার্বত্যাঞ্চলের আকাশ-বাতাস স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিল। শোকে ভারি হয়ে ওঠেছিল সমস্ত পরিবেশ। পরে উদ্ধার করা লাশগুলি এনে লংগদু উপজেলা মাঠ সংলগ্ন খোলা যায়গায় দাফন করা হয়।

সামঞ্জস্যপূর্ণ সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + fourteen =