ভাতাবিহীন সেই ৬ প্রতিবন্ধীর পাশে জেলা প্রশাসক ও পার্বত্য প্রেসক্লাব

সবুজ পাতা ডেস্ক ঃ খাগড়াছড়ির দিঘীনালা উপজেলার ভূঁইয়াছড়া গ্রামের ভাতাবিহীন একই পরিবারের ৬ প্রতিবন্ধীর পাশে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস এবং পার্বত্য প্রেসক্লাব ও সবুজ পাতার দেশ। জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র  বিশ্বাস নগদ ২৫ হাজার টাকার পাশাপাশি গুচ্ছগ্রাম ২য় পর্যায় প্রকল্পের অধীনে একটি সেমিপাকা গৃহ নির্মান করে দেওয়াসহ ৬ জনের সকলকে প্রতিবন্ধী ভাতার আওতায় আনার জন্য দিঘীনালা উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তাকে এবং প্রতিবন্ধীদের চিকিৎসার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য জেলা প্রতিবন্ধী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।
৩০ নভেম্বর সোমবার সকালে নিজ দপ্তরে প্রতিবন্ধীদের হাতে ২৫ হাজার টাকার চেক তুলে দেওয়ার সময় জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, জেলার সকল প্রতিবন্ধীকে ভাতাসহ সরকারী সকল সুযোগ সুবিধার আওতায় আনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া আছে। এব্যাপারে যাতে কেউ কোন আইনের ব্যত্বয় অথবা গাফিলতি করতে না পারে সে ব্যপারে সাংবাদিকদের সতর্ক দৃষ্টি রাখার আহবান জানান ডিসি।
পার্বত্য প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের অনুসন্ধানে উঠে আসা এবং দৈনিক সবুজ পাতার দেশ সহ অনেক জাতীয় দৈনিকে ‘‘ভাতাবিহীন একই পরিবারের ৬ প্রতিবন্ধী’’ শিরোনামে সংবাদটি ভাইরাল হয়। ইতোমধ্যে ভাতাবিহীন একই পরিবারের এই ৬ প্রতিবন্ধীর বসতঘরের চালের জন্য টিন ও অন্যান্য জিনিসপত্র দিয়েছিলেন পার্বত্য প্রেসক্লাব ও সবুজ পাতার দেশ পত্রিকা পরিবার। আগামী কিছুদিনের মধ্যে তাদেরকে শীতবস্ত্রসহ জীবন ধারনের অত্যাবশ্যকীয় সরঞ্জাম প্রদানের জন্য অর্থের যোগান চলছে বলে জানিয়েছেন পার্বত্য প্রেসক্লাবের সভাপতি দেব প্রসাদ ত্রিপুরা।

আর্থিক অনুদানের কার্যক্রম শেষে পার্বত্য প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে ৬ প্রতিবন্ধীর প্রত্যেককে সাদাছড়ি তুলেদেন জেলা প্রতিবন্ধী কর্মকর্তা মো: শাহজাহান। তাছাড়া খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে নিয়ে ডাক্তার দেখিয়েছেন জেলা প্রতিবন্ধী কর্মকর্তা মো: শাহজাহান, সাংবাদিক জুলহাস উদ্দিন ও মেম্বার হেলাল উদ্দিন। রুবেলা ভাইরাস জনিত সিনড্রোম এর কারনে তারা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হয়েছেন এবং সঠিক চিকিৎসা করা গেলে হয়তো দৃষ্টিশক্তি উন্নতি হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন ডা: আলাল উদ্দিন।
প্রতিবন্ধীদের আর্থিক সহায়তার চেক হস্তান্তরের সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমাজ সেবা কর্মকর্তা রোকেয়া বেগম, খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নুরুল আজম, পার্বত্য প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সবুজ পাতার দেশ পত্রিকার সম্পাদক জুলহাস উদ্দিন, দৈনিক যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি সমীর মল্লিক, পার্বত্য প্রেসক্লাবের অর্থ সম্পাদক আব্দুলাহ আল মামুন, সদস্য সুজন বড়ুয়া, মেরুং ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড মেম্বার হেলাল উদ্দিন, লোকমান হোসেন, নুর মোহাম্মদ হৃদয় প্রমুখ।

উল্লেখ্য, সোমবার দুপুরে পার্বত্য প্রেসক্লাবে   উপস্থিত হয়ে ধন্যবাদ জানাতে আসেন মেম্বার হেলাল উদ্দিন । তিনি বলেন, আপনাদের ( পার্বত্য প্রেসক্লাবের সদস্যদের ) অক্লান্ত পরিশ্রম ও প্রতিবেদন প্রকাশের ফলে জেলা প্রশাসক মহোদয় আমার এলাকার আসহায় প্রতিবন্ধীদের  সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন। এজন্য জেলা প্রশাসক মহোদয়ের পাশাপাশি পার্বত্য প্রেসক্লাবকেও আমার এলাকাবাসীর পক্ষথেকে  অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

বিস্তারিত

সামঞ্জস্যপূর্ণ সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

sixteen + 9 =